কচ্ছপের শরীরে একশন ক্যামেরা লাগিয়ে ছেড়ে দেওয়া হল সাগরে, পানির নিচে জেতেই ক্যামেরায় ধরা পড়ল নানান অদ্ভুদ জিনিস, তুমুল ভাইরাল ভিডিও।

কচ্ছপ এক ধরনের সরীসৃপ প্রানী যারা জল এবং ডাঙা দুই জায়গাতেই বাস করে । এদের শরীরের উপরিভাগ শক্ত খোলসে আবৃত থাকে যা তাদের শরীরকে বিভিন্ন পরিস্থিতিতে রক্ষা করে। কচ্ছপ পৃথিবীতে এখনও বর্তমান এমন প্রাচীন প্রাণীদের মধ্যে অন্যতম। বর্তমানে কচ্ছপের প্রায় ৩০০ প্রজাতি পৃথিবীতে রয়েছে, এদের মধ্যে কিছু প্রজাতি মারাত্মক ভাবে বিলুপ্তির পথে রয়েছে।

বিশেষত দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় আহার্য হিসেবে গ্রহণের কারণে এটি বিলুপ্তির পথে। কচ্ছপ বিভিন্ন পরিস্থিতিতে তা নিজের শরীরের অভ্যন্তরীণ তাপমাত্রা পরিবর্তন করতে পারে, সাধারণত এ ধরনের প্রাণীদের ঠান্ডা-রক্তের প্রাণী বলে অভিহিত করা হয়। অন্যান্য প্রাণীর মত এরা নিশ্বাস গ্রহণ করে। কচ্ছপের অনেক প্রজাতি পানিতে বা পানির আশেপাশে বাস করলেও এরা ডাঙায় ডিম ছাড়ে।কচ্ছপ (Tortoise) Testudines বর্গের অন্তর্গত ডাঙ্গায় বসবাসকারী সরীসৃপ। এদের দেহ খোলসদ্বারা আবৃত থাকে।

খোলসের উপরের অংশকে Carapace(ক্যারাপেস) এবং নিচের অংশকে Plastron(প্লাসট্রন )বলে।এরা কয়েক সে.মি. থেকে ২ মিটার পর্যন্ত বড় হতে পারে। এরা সাধারণত দিবাচর প্রাণী তবে তাপমাত্রার উপর নির্ভর করে তারা গোধূলীতেও সক্রিয় হয়ে থাকে। তারা সাধারণত দলবদ্ধ প্রাণী নয় এবং একাকি জীবন যাপন করে থাকে। যদিও “Tortoise” শব্দটি জীববিজ্ঞানীরা Testudinidae গোত্রের প্রাণীদের বোঝাতে ব্যবহার করে থাকেন তবে সাধারনভাবে ডাঙ্গায় বসবাসকারী Testudines দের বোঝাতে শব্দটি ব্যবহৃত হয়ে থাকে।

মেয়ে কচ্ছপরা ডিমের জন্য গর্ত করে এবং সেখানে ১ থেকে ৩০টি পর্যন্ত ডিম পাড়ে। তারা সাধারণত রাতের বেলা ডিম পাড়ে এবং ডিম পাড়ার পর মা কচ্ছপ ডিমগুলোকে মাটি, বালি বা অন্য যেকোন জৈব পদার্থ দিয়ে ঢেকে দেয়। মা কচ্ছপ ডিম পাড়ার পর ডিমগুলো প্রকৃতির দায়িত্বে রেখে চলে যায়। ডিম ফুটে বাচ্চা বের হতে প্রজাতি বিশেষে ৬০ থেকে ১২০ দিন সময় লাগে। ডিমের আকার মায়ের আকারের উপর নির্ভর করে এবং carapace এবং plastron এর মাঝে অবস্থিত cloacal opening(পায়ুমুখ) এর প্রস্থ পরিমাপ করে এর মোটামুটি ধারণা পাওয়া যায়। মেয়ে কচ্ছপদের

ভিডিওটি দেখতে ক্লিক করুন…

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*